• বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
একুশের প্রথম প্রহরে ফুলপুরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পন” কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতিরাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নবীনগরে পরান কম্পিউটার ইনস্টিটিউটের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত। পূর্বধলায় জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা পদক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত সাংসদ খাদিজাতুল আনোয়ার সনির সংসদ সদস্য পদ বাতিল চেয়ে রীট! আবারও বিয়ের গুঞ্জন, নিশ্চুপ ফারাজ! ফুলপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ছাগলনাইয়ায় খামারি হত্যা: গ্রেপ্তার ২ ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানে নিহত সেনবাগের ৪ শহীদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি আজো মেলেনি চট্টগ্রামে ৩১তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য( CITF)এর মেলার উদ্বোধন

‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস’-এর সমর্থনে আমির খান

বিনোদন ডেস্ক / ৫৫ Time View
Update : মঙ্গলবার, ২২ মার্চ, ২০২২

ভারতের জাতীয় ইস্যুতে রূপ নিয়েছে ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস’। বিবেক অগ্নিহোত্রী পরিচালিত এই সিনেমা বক্স অফিসে রেকর্ড পরিমাণ ব্যবসা করছে। প্রতিদিনই এর আয় বাড়ছে। ‘রাধে শ্যাম’, ‘বচ্চন পাণ্ডে’র মতো বিগ বাজেটের সিনেমাও এর প্রভাবে কোণঠাসা হয়ে গেছে।

১৯৯০ কাশ্মীর থেকে হিন্দু পণ্ডিতদের বিতাড়িত করার ঘটনা নিয়ে নির্মিত হয়েছে এই সিনেমা। যার ফলে ভারতীয় হিন্দুদের কাছে সিনেমাটি ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছে। এমনকি দেশটির সরকারও এই সিনেমার সমর্থনে রয়েছে। এবার ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস’-এর সমর্থনে কথা বললেন বলিউড সুপারস্টার আমির খান। তার মতে, এ বিষয় নিয়ে সিনেমা হওয়া উচিত ছিল। আমির বলেন, ‘কাশ্মীর পণ্ডিতদের সঙ্গে যা হয়েছে, তা সত্যিই খুব দুঃখজনক। এই ঘটনা ভারতীয় ইতিহাসের হৃদয়বিদারক একটা অংশ। যা গভীর ক্ষতের জন্ম দিয়েছে। আমার মনে হয়, এমন একটি বিষয় নিয়ে সিনেমা হওয়া উচিত ছিল। এই সিনেমার গোটা টিমকে শুভেচ্ছা।’ আমির খান অবশ্য এখনো সিনেমাটি দেখার সময় পাননি। শিগগিরই দেখবেন বলে জানিয়েছেন। তার ভাষ্য, “দ্য কাশ্মীর ফাইলস’ যে বিষয় নিয়ে তৈরি হয়েছে, তা দেশের মানুষের জানা উচিত। প্রত্যেক ভারতীয়র এই সিনেমা অবশ্যই দেখা উচিত। আমার এখনও দেখা হয়ে ওঠেনি। খুব শিগগিরই দেখে ফেলব।” কেবল প্রশংসা নয়, বহু মানুষ এই সিনেমার সমালোচনাও করছে। বলিউডের খ্যাতিমান অভিনেতা নানা পাটেকর বলেছেন, ‘হিন্দু ও মুসলিম দুই সম্প্রদায়ের মানুষই ভারতেরই বাসিন্দা। সবারই শান্তিতে থাকা উচিত। তাদের একে অন্যকে প্রয়োজন। পরস্পরকে ছাড়া থাকতে পারবেও না। কোনো এক সিনেমার জন্য বিভাজনের পরিস্থিতি তৈরি হওয়া ঠিক নয়। এমন সিনেমার মাধ্যমে যারা সেই শান্তি নষ্ট করছেন, তাদের কাছে জবাব চাওয়া উচিত। জানানো উচিত, এমনটা করলে সমাজের ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে যাবে।’

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

ফেসবুকে আমরা