• বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৬:২৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম
বই পড়লেই কেউ জ্ঞানি হয়ে যাবে…. ঢাকায় ফিরে যা বললেন ডিবির হারুন-আনার হত্যাকাণ্ড বিশ্রাম শেষে মেসির গোল জেতাতে পারল না মায়ামিকে পোল্যান্ডকে হারিয়ে সেমিফাইনালে বাংলাদেশ-বঙ্গবন্ধু কাপ কাবাডি  লেবানন ও অস্ট্রেলিয়া  ম্যাচের স্কোয়াডে নেই জিকো, ফিরলেন মোরসালিন কান চলচ্চিত্র ইংরেজি বলার ভঙ্গি নিয়ে সমালোচনার জবাব দিলেন কিয়ারা আদভানি! অভিনেত্রী  বিয়ে বা লিভ-ইন আমার কাছে আলাদা কিছু না : পায়েল মধ্যপ্রাচ্য শান্তি সম্মেলনের আহ্বান জানিয়েছেন-চীনের প্রেসিডেন্ট  একাধিক স্বল্প-পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ-উত্তর কোরিয়ার মিশরের প্রেসিডেন্টের- গাজাবাসীকে ‘জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত না করা’ নিশ্চিত করার আহ্বান 

বিশ্লেষণ: আকার এবং স্থান বিবেচনায় ইসরাইলের আক্রমণ খুবই নগণ্য

আন্তজাতিক ডেস্ক / ৭ Time View
Update : শনিবার, ২০ এপ্রিল, ২০২৪

ইরানের গত শনিবারের ড্রোন এবং মিসাইল হামলার জবাব যে দেবে এটা আগেই স্পষ্ট করেছিল ইসরাইল। সেই জবাব তারা দিয়েছে বলেই মনে হচ্ছে। যদি সত্যিই এটা ইসরাইলের জবাবের শুরু এবং এটাই শেষ হয়ে থাকে, তাহলে বলতে হবে হামলার আকার বা স্থান বিবেচনায় এই জবাব খুবই সামান্য। ইস্পাহানের শুক্রবারের সকালটা আর দশটা সকালের মতোই ছিল। সপ্তাহজুড়ে ইসরাইলে পশ্চিমা মিত্র, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র এবং বৃটেন, দেশটির সরকারকে তাগিদ দিয়ে আসছিল যেন ইরানি হামলার জবাবে বড় ধরনের পাল্টা হামলা চালানো না হয়। যদিও ইরানের সেই হামলা রীতিমতো চাঞ্চল্যকর, কিন্তু সেটাও আসলে ছিল একটা প্রতিশোধ। ১লা এপ্রিল সিরিয়ার দামেস্কে ইরানের কনস্যুলেটে বিমান হামলা চালায় ইসরাইল। এতে দু’জন শীর্ষ রেভ্যুলুশনারি গার্ডের সামরিক কমান্ডারসহ ১৩ জন নিহত হন। পুরোপুরি মাটিতে ধসে যায় কন্স্যুলেট ভবনটি। তখন থেকেই ক্ষোভে ফুঁসছিল ইরান।

 

ফলে ১৩ই এপ্রিল ইসরাইলে আক্রমণ করে ইরান। ব্যবহার করে কমপক্ষে ৩০০ ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র। ইসরাইলের দাবি, তারা আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আয়রন ডোম ব্যবহার করে ভূপাতিত করেছে ওইসব ড্রোন বা ক্ষেপণাস্ত্র। তারপর থেকে ইসরাইল অগ্নিশর্মা হয়ে ওঠে। তারাও পাল্টা জবাব দেয়ার জন্য মুখিয়ে ওঠে। যুদ্ধকালীন মন্ত্রিপরিষদ দফায় দফায় বৈঠক করতে থাকে। তা থেকে ইরানের বিরুদ্ধে কঠোর আক্রমণ চালানোর জন্য চাপ সৃষ্টি করা হয় প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর ওপর। অন্যদিকে পশ্চিমা বিশ্ব, জাতিসংঘ থেকে এমন হামলা না চালানোর জন্য চাপ আসে। সব পক্ষকে সংযত থাকতে আহ্বান জানান যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন, জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরাঁ প্রমুখ। তবে তাদের বেশির ভাগই ইসরাইলের আত্মরক্ষার অধিকারের পক্ষে অবস্থান ব্যক্ত করেন। এমন প্রেক্ষাপটে গতকাল ওই হামলার খবর আসে। এখন পরিস্থিতি কোনদিকে গড়াবে সেটা দু’টো বিষয়ের ওপর নির্ভর করে: ইসরাইলের হামলা এখানেই শেষ কিনা এবং ইরান পাল্টা হামলার সিদ্ধান্ত নেয় কিনা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

ফেসবুকে আমরা