• বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৬:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্র এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাকিব-মাহমুদউল্লাহর জন্যই খেলবেন শান্তরা

খেলাধুলা ডেস্ক / ১ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ১৬ মে, ২০২৪

যুক্তরাষ্ট্র এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে আগামী ২ জুন থেকে শুরু হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের নবম আসরের খেলা। আইসিসির মাসব্যাপী মেগা এই টুর্নামেন্টে অংশ নিতে গতকাল দিবাগত রাত ১টা ৪০ মিনিটের ফ্লাইটে আমেরিকার উদ্দেশে দেশ ছেড়েছেন নাজমুল হোসেন শান্তরা। দলের সঙ্গে টিম ম্যানেজমেন্টের সদস্য ও কোচিং স্টাফসহ সব খেলোয়াড়ই রয়েছেন।

দেশ ছাড়ার আগে কাল দুপুরে শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহকে নিয়ে অফিসিয়াল ফটোসেশন সেরে নেয় বাংলাদেশ দল। এসময় দলের সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট ও অন্যান্য কোচিং স্টাফরাও। টাইগারদের এই ফটোসেশনে শেষ দিকে যুক্ত হন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। আরো উপস্থিত ছিলেন ক্রিকেট অপারেশন্স চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস ও বিসিবি’র সিইও নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন। ফটোসেশন শেষে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেন বাংলাদেশ দলের কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহ ও অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। সংবাদ সম্মেলনে বিশ্বকাপ নিয়ে নিজেদের ভাবনার কথা গণমাধ্যমকে জানান হাথুরুসিংহে এবং শান্ত। প্রধান কোচের বিশ্বাস আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভালো করবে তার শিষ্যরা। হাথুরুসিংহে বলেন,‘আমার মতে আমাদের প্রস্তুতি বেশ ভালো। চট্টগ্রামে ক্যাম্প করেছি, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পাঁচটি ম্যাচ খেলেছি, খেলার সুযোগ দিতে পেরেছি প্রায় সবাইকে। কয়েকজনের ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স নিয়ে একটু দুশ্চিন্তা আছে। তবে সব মিলিয়ে দলের প্রস্তুতিতে আমি খুশি।’ তিনি যোগ করেন,‘প্রত্যেক টুর্নামেন্টই ভালো করার সুযোগ নিয়ে আসে। আমাদের জন্য এবারের আসর চ্যালেঞ্জিং হলেও অতীতের চেয়ে ভালো করার জন্য সম্ভাব্য সব প্রস্তুতিই আমরা নিয়েছি। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জের। আমরা র‌্যাঙ্কিংয়ে কোথায় আছি, সেখানেও দেখা যায়। এখানে অস্বীকার করার কিছু নেই। কিন্তু আমাদের যে প্রস্তুতি, সেটার হিসাবে বলতে পারি আগের চেয়ে ভালো করার সুযোগ আছে।’

তবে আমেরিকা এবংওয়েস্ট ইন্ডিজের কন্ডিশন নিয়ে ভাবছেন বাংলাদেশের প্রধান কোচ, ‘কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া বেশ গুরুত্বপূর্ণ, কারণ আমরা অ্যামেরিকায় বোধহয় আগে ম্যাচ খেলিনি। তাই যুক্তরাষ্ট্রে খেলা সবার জন্য নতুন অভিজ্ঞতা। ওখানকার কন্ডিশন ও আবহাওয়া, ভিন্ন টাইম জোন- সবকিছুর সঙ্গেই মানিয়ে নেওয়া জরুরী। আমরা সব ম্যাচই জিততে চাই। ওয়ার্ক লোডের কথা মাথায় রেখে মূল খেলোয়াড়দের বিশ্রাম দিতে হবে। শারীরিক ও মানসিক বিশ্রামের পাশাপাশি কন্ডিশনে মানিয়ে নেওয়ার দিকেই মূল মনোযোগ থাকবে আমার।’

নিজের লক্ষ্যের কথা জানিয়ে অধিনায়ক শান্ত বলেন, ‘বাংলাদেশের সবাই নিশ্চয়ই ভালো প্রত্যাশা করে, আমিও করি। আমার মনে হয়, আমরা যদি সুন্দরভাবে ছোট ছোট চিন্তা করে এগিয়ে যাই, তাহলে ভালো হবে। আমরা যে গ্রুপে আছি, সেটাকে খুব সহজ বলব না। গ্রুপ পর্বটা পার করতে পারলে ভালো হবে। এরপর দেখা যাবে। আশা তো করছি এবার ভালো কিছু হবে। প্রস্তুতি ও সমন্বয় মিলিয়ে মনে হচ্ছে, আমাদের দলটা খুব ভালো। তবে নির্দিষ্ট দিনে ভালো খেলাটা জরুরী। আশা করছি, এবার সবাই সেটা করবে।’

এদিকে এবারের বিশ্বকাপের জন্য বাংলাদেশের যে ১৫ জনের স্কোয়াড ঘোষণা করা হয়েছে, সেখানে সবচেয়ে অভিজ্ঞ সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। দুই অলরাউন্ডারের অভিজ্ঞতা নিশ্চিতভাবে তরুণ এই দলকে ভালো কিছু করে দেখাতে অনুপ্রাণিত করবে। অধিনায়ক শান্তর আশা, যুক্তরাষ্ট্র এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজে শুরু হতে যাওয়া বিশ্বকাপকে সাকিব ও মাহমুদউল্লাহর জন্য স্মরণীয় করে রাখতে ভালো পারফর্ম করবেন তরুণ খেলোয়াড়রা। ২০০৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত আটটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সবগুলোই খেলেছেন সাকিব। এবার নবম আসরে খেলতে যাচ্ছেন তিনি। আর মাহমুদউল্লাহ কেবল ২০২২ সালের বিশ্বকাপে খেলেননি। ক্যারিয়ারের অষ্টম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে যাচ্ছেন তিনি। ধারণা করা হচ্ছে, এবারই নিজেদের শেষ বিশ্বকাপ খেলবেন তারা দু’জন। তাই তো বিশ্বকাপের আগে শেষ সংবাদ সম্মেলনে দলের প্রতি অধিনায়ক শান্তর আহ্বান সাকিব-মাহমুদউল্লাহর জন্য ভালো খেলার। তার কথায়, ‘আমি জানি না এটা তাদের (মাহমুদউল্লাহ ও সাকিব) শেষ বিশ্বকাপ হতে যাচ্ছে কি না, এটা কেবলই অনুমান। আমাদের মতো তরুণ খেলোয়াড়রা অবশ্যই চাইবে, তারা (মাহমুদউল্লাহ ও সাকিব) যেন এই বিশ্বকাপ থেকে স্মরণীয় কিছু পেতে পারেন, তারা দীর্ঘদিন ধরে খেলছেন।’

সাকিব ও মাহমুদউল্লাহর কাছ থেকে প্রত্যাশা কি? এই প্রশ্নের উত্তরে শান্ত বলেন, ‘আমরা সাকিব ভাই ও রিয়াদ ভাইয়ের কাছ থেকে বাড়তি কিছু চাই না। তারা যদি তাদের ভূমিকা অনুযায়ী পারফর্ম করতে পারেন, দল অবশ্যই সুবিধা পাবে। আমরা চাই তারা তাদের অভিজ্ঞতা অন্যদের মাঝে বিলিয়ে দিক, যেন দলের উন্নতি হয়।’

বিশ্বকাপের পথে বাংলাদেশ দল
নাজমুল হোসেন শান্ত (অধিনায়ক), তাসকিন আহমেদ (সহ-অধিনায়ক), লিটন কুমার দাস, সৌম্য সরকার, তানজিদ হাসান তামিম, সাকিব আল হাসান, তাওহিদ হৃদয়, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, জাকের আলি অনিক, রিশাদ হোসেন, শেখ মেহেদী হাসান, তানজিম হাসান সাকিব, মুস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম ও তানভীর ইসলাম। রিজার্ভ : হাসান মাহমুদ ও আফিফ হোসেন

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category

ফেসবুকে আমরা